আপডেট : ১৯ জুলাই, ২০১৬ ১১:০৩
সানিয়া মির্জার আত্মজীবনী গ্রন্থের আনুষ্ঠানিক প্রকাশ অনুষ্ঠানে সালমান

‘আমার জীবন কাহিনি কবরেই শুয়ে থাকবে’

বিনোদন ডেস্ক
‘আমার জীবন কাহিনি কবরেই শুয়ে থাকবে’

টেনিস তারকা সানিয়া মির্জার আত্মজীবনী 'এস এগেনস্ট অডস' গ্রন্থের আনুষ্ঠানিক প্রকাশ করতে এসেছিলেন সালমান 'সুলতান' খান৷ স্বভাবতই সাংবাদিকেরা তাঁকে জিজ্ঞেস করেছিলেন তিনি আদৌ কোনদিন আত্মজীবনী লিখবেন কিনা৷ সেই প্রশ্নের উত্তরে ৫০ বছর বয়সী 'বজরঙ্গী ভাইজান' বলেছেন, 'আমি যদি কলম ধরি তাহলে অনেককে ঘিরে অনেক পুরনো ক্ষত প্রকাশ হয়ে পড়বে৷ আমি কাউকে বিব্রত করতে চাই না৷ তাই আমার জীবন কাহিনি আমার সঙ্গে শেষ পর্যন্ত কবরেই শুয়ে থাকবে৷ এটাই আমার সিদ্ধান্ত৷'

সালমান খানের কথা শুনে সানিয়া হেসে বলেছেন, 'সালমান কখনই নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন না৷ চেষ্টা করেন, কিন্তু প্রতিবারই ব্যর্থ হন... তাঁকে কিছু না কিছু অন্তত বলতেই হয়৷'

কথায়-কথায় সানিয়া প্রসঙ্গে সালমান বলেছেন টেনিস তারকা হওয়ার কারণেই সানিয়া হয়তো এই মুহূর্তে সিনেমায় অভিনয় করতে আগ্রহী নন, কিন্তু ভবিষ্যতে তিনি এই ব্যাপারটা ভেবে দেখতে পারেন৷ হাতে ধরা সানিয়ার আত্মজীবনীটি দেখিয়ে সালমান বলেন, 'এই যে বইটি দেখছেন, এর প্রচ্ছদের ছবিটি দেখুন৷ টেনিস তারকা হয়ে আজ সানিয়া যেখানে পৌঁছেছেন তিনি যদি সিনেমা করতেন তাহলেও ঠিক এইভাবেই কোন এক অটোবায়োগ্রাফির প্রচ্ছদে তাঁকে আমরা দেখতে পেতাম৷'

সাংবাদিকেরা জানতে চেয়েছিলেন তিনি কোনদিন স্পোর্টসম্যান হওয়ার ইচ্ছে প্রকাশ করেছিলেন কিনা৷ উত্তরে সালমান জানিয়েছেন তিনি 'সুলতান' ছবিতে মল্লযোদ্ধার ভূমিকায় অভিনয় করলেও তাঁর বাবা এক সময় চেয়েছিলেন তিনি ক্রিকেটার হন এবং দেশের হয়ে খেলুন৷' সেই কারণে বাবা আমার কোচ হিসেবে রেখে ছিলেন সেলিম দুরানিকে৷ প্রথম দিন আমি বেশ ভালোই খেললাম৷ দ্বিতীয় দিনও৷ তৃতীয় দিন সেলিম দুরানি আমার বাবাকে ডাকলেন আমার খেলা দেখতে৷ যেহেতু বাবা আসছেন, তাই আমি ঠিক করলাম ওই দিন খুব খারাপ খেলবো৷ কারণ, ক্রিকেটার হতে গেলে ভোর ৫টায় ঘুম থেকে উঠতে হবে, প্র্যাকটিস করতে হবে, সে এক কঠিন জীবন৷ আমার পোষাবে না৷ শেষ পর্যন্ত তৃতীয় দিন খারাপ খেলায় আমার আর ক্রিকেটার হতে হল না৷'

সূত্র: পিটিআই

উপরে