আপডেট : ৫ জুন, ২০১৬ ২২:৪৬

শ্বশুরবাড়িতে ঈদ করতে চেয়েছিলেন মাহমুদা

বিডিটাইমস ডেস্ক
শ্বশুরবাড়িতে ঈদ করতে চেয়েছিলেন মাহমুদা

চট্টগ্রামে দুর্বৃত্তদের হাতে নিহত মাহমুদা খানমের শ্বশুরবাড়িতে মাতম চলছে। সপ্তাহ দু-একও হয়নি চট্টগ্রামে পুত্রবধূ আর নাতি-নাতনির কাছ থেকে ঘুরে এসেছেন তাঁর শ্বশুর আবদুল ওয়াদুদ। ছিলেন প্রায় তিন সপ্তাহ। সেসব স্মৃতি মনে করে কেঁদে উঠছেন তিনি। মাগুরা শহরের কাউন্সিল পাড়ার বাড়িতে গিয়ে দেখা গেল, শাশুড়ি শাহিদা ওয়াদুদ শোকে শয্যাশায়ী। বাড়িতে চলছে স্বজনদের আহাজারি।

নিহত মাহমুদা খানম পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আক্তারের স্ত্রী। জঙ্গি দমনে সাহসী ভূমিকার জন্য আলোচিত এই পুলিশ কর্মকর্তা।

মাহমুদার শ্বশুর অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা। তিনি বিলাপ করতে করতে বলেন, ‘বউমা আমার মেয়ে ছিল। এ যুগে এমন মেয়ে পাওয়া যায় না। এমন নিষ্পাপ মেয়েটারে সন্ত্রাসীরা মেরে ফেলল। আমি এখন ওর ছোট্ট বাচ্চা দুডোরে কী বলে সান্ত্বনা দেব?’ বলছিলেন, ‘প্রমোশনের পর বাবুলরা মাগুরায় আসেনি। তাই এবার চট্টগ্রাম থেকে আসার সময় বউমাকে বলেছিলাম, ঈদ যেন মাগুরাতে করে। বউমা বলেছিল, “মাগুরাতেই ঈদ করব ইনশা আল্লাহ।”’

কাঁদতে কাঁদতে মাহমুদার শাশুড়ি বলেন, ‘ঈদের আরও কত বাকি। রোজাই শুরু হয়নি। অথচ আমার বউমা ঈদের সবকিছু কিনে পাঠিয়েছে আমাদের জন্য। কাকে কী দিতে হবে, সব। ব্যাগটা এখনো খুলেও দেখিনি।’

আবদুল ওয়াদুদ জানালেন, তাঁর তিন ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে বাবুল আক্তার বড়। জানাজা শেষে মাহমুদার দাফন হবে ঝিনাইদহের শৈলকুপায় গ্রামের বাড়িতে।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আরকে

উপরে