আপডেট : ১২ মে, ২০১৬ ১৯:৪২

মোবাইল ফোন থেকে ব্রেইন ক্যান্সার,সত্যি নাকি গুজব?

অনলাইন ডেস্ক
মোবাইল ফোন থেকে ব্রেইন ক্যান্সার,সত্যি নাকি গুজব?

আপনি কি মোবাইল ফোনে আসক্ত? তাহলে আপনার জন্য সুখবর বয়ে নিয়ে এসেছে অস্ট্রেলিয়ার একদল গবেষক।

 

এতদিন মনে করা হতো অধিক পরিমাণে মোবাইল ফোন ব্যবহারে ব্রেইন ক্যানসার হওয়ার অনেকটাই ঝুঁকি থাকে। কিন্তু সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার একদল বিজ্ঞানী দাবি করেছেন, মোবাইল ফোন ব্যবহারে ক্যানসার হওয়ার কোনো আশঙ্কা নেই।

 

সম্প্রতি বালটিমোরে অনুষ্ঠিত এক সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের চিকিৎসক এবং বিজ্ঞানীরা জানিয়েছিলেন, মোবাইল ফোন ব্যবহারে ব্রেইন ক্যানসার হওয়ার ঝুঁকি থাকে।

 

এ প্রসঙ্গে এনভায়রোনমেন্ট হেলথ ট্রাস্টের প্রেসিডেন্ট ড. ডেভরাস ডেভিস বলেছেন, ‘সকল তথ্য প্রমাণ থেকে এটিই প্রমাণিত, মোবাইল ফোন ব্রেইন ক্যানসারের জন্য দায়ী।’ বিশেষ করে মাতৃগর্ভে শিশুরা মোবাইল ফোনের তেজষ্ক্রিয়তায় আক্রান্ত হতে পারে। এ জন্য গর্ভবতী নারীদেরকেও মোবাইল ফোন ব্যবহারে সতর্ক হওয়ার আহ্ববান জানান তিনি।

 

কিন্তু মোবাইল ফোনে ক্যানসারের আশঙ্কা নেই। ৩০ বছর গবেষণা শেষে এমনটাই দাবি করেছেন অস্ট্রেলিয়ার বিজ্ঞানীরা। বরং ধূমপান, অতিরিক্ত ডায়েট, অতিরিক্ত মদ্যপান, শারীরিক পরিশ্রম না করার কারণে ক্যানসার হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

 

বিজ্ঞানীরা জরিপ করে দেখেছেন, গত ৩০ বছরে অস্ট্রেলিয়াতে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী বেড়েছে ৯৪ শতাংশ কিন্তু সেই তুলনায় ক্যানসার রোগীর সংখ্যা বাড়েনি। এ বিষয়ে আনুষাঙ্গিক পরীক্ষা শেষে তারা এ সিদ্ধান্তে এসেছেন।

 

সিডনি বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক এ প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, সাধারণত যাদের বয়স ৩০ বছরের বেশি তাদের ব্রেইন টিউমার বা ব্রেইন ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। কিন্তু এ জন্য মোবাইল ফোন দায়ী নয়। মোবাইল ফোন ব্যবহারে ব্রেইন ক্যানসার হয় এটা সম্পূর্ণ ভুল ধারণা। মোবাইল ফোন আবিষ্কারের আগে থেকেই আমাদের মধ্যে ব্রেইন ক্যানসার দেখা দিয়েছিল।

 

গবেষক দলের এক সদস্য এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘মোবাইল ফোন থেকে এক ধরনের নন-আয়নিসিং রেডিয়েশন বের হয়। এই রেডিয়েশনের এনার্জি খুবই কম। এই রেডিয়েশন কোনোভাবেই আমাদের মস্তিষ্কের ক্ষতি করে না।’

 বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এমএইচ

উপরে