আপডেট : ১৪ আগস্ট, ২০১৬ ১৬:৪৯

প্রযুক্তি কেড়ে নিচ্ছে মানুষের প্রাইভেসি!

অনলাইন ডেস্ক
প্রযুক্তি কেড়ে নিচ্ছে মানুষের প্রাইভেসি!
সবকিছুই যেন আপনার ওপর গোয়েন্দাগিরি করছে। ফেসবুক, আধুনিক টিভি থেকে শুরু করে মোবাইল ফোনের ব্যাটারি পর্যন্ত এ চক্রান্তে যেন লিপ্ত রয়েছে। আর এটি যেন আধুনিক প্রযু্ক্তির এক মারাত্মক সমস্যা হিসেবেই দেখা দিয়েছে। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে ইন্ডিপেনডেন্ট।
বর্তমানে নানা ধরনের হ্যাকিং, সাইবার আক্রমণ ইত্যাদির সংখ্যাও বেড়েছে। আর এ কারণে মানুষের এখন প্রাইভেট লাইফ ক্রমে অসংখ্য মানুষের সামনে চলে আসছে।

সম্প্রতি স্মার্টফোনের ব্যাটারি ইন্ডিকেটর ব্যবহার করেও হ্যাকিংয়ের ঘটনা ঘটেছে। গবেষকরা জানিয়েছেন, স্মার্টফোনের ব্যাটারিতে কতখানি চার্জ রয়েছে, এ তথ্যটি স্মার্টফোন থেকে অনলাইনে চলে যায়। এটি করা হয় বিভিন্ন ওয়েবসাইট যেন ব্যাটারির তথ্য ব্যবহার করে তাদের সাইটের কোন ধরনের তথ্য প্রদর্শিত হবে, তা নির্ণয় করতে পারে। কিন্তু এ ব্যাটারির তথ্য ব্যবহার করেই স্মার্টফোনটি থেকে কোন কোন সাইটে ব্রাউজ করা হচ্ছে শুধু তাই নয়, ব্যবহারকারীর আরও বহু সংবেদনশীল তথ্য জেনে নেওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে।

স্মার্টফোনের ব্যাটারির হ্যাকিংয়ের এ তথ্যই প্রমাণ করে যে, প্রাইভেসি কতভাবে লঙ্ঘিত হতে পারে তা কারো পক্ষে অনুমান করা সম্ভব নয়।
স্মার্টফোনের ব্যাটারি কমে যাওয়ার তথ্য ব্যবহার করে ট্যাক্সি সার্ভিস প্রোভাইডারও তাদের বিজ্ঞাপন দিতে পারে। যেমন ট্যাক্সি সার্ভিস প্রোভাইডার উবার জানিয়েছে, ব্যাটারির তথ্য জেনে নিয়ে তারা অনুমান করতে পারে, ব্যাটারি শেষ পর্যায়ে আসলে ব্যবহারকারীরা ট্যাক্সি ঠিক করার সময় হবে। আর সে সময়টিতে তাদের সামনে ট্যাক্সির বিজ্ঞাপন ভালো কাজ করতে পারে। যদিও প্রতিষ্ঠানটি এ তথ্য ব্যবহার করেনি বলেই জানায়।
সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক একজন ব্যবহারকারীর বহু তথ্যই জানে। এক্ষেত্রে ফেসবুকের মাধ্যমে যে কেউ চাইলে একজন ব্যক্তির যাবতীয় ব্যক্তিগত তথ্য হস্তগত করতে পারে।

বর্তমান সময়ে আধুনিক প্রযুক্তি ও ডিজিটাল যন্ত্রপাতি যতই বিস্তার লাভ করছে ততই প্রাইভেসি রক্ষা করা অসম্ভব হয়ে পড়ছে। আর এ কারণে অধিকাংশ মানুষেরই ব্যক্তিগত তথ্য রক্ষা করা সম্ভব হচ্ছে না। যথাযথ ব্যবস্থা না নিলে এ পরিস্থিতিতে একদিন হয়ত মানুষের প্রাইভেসি বলে আর কিছু অবশিষ্ট থাকবে না, এমনটাই আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।
উপরে