আপডেট : ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৭:১৮

ভুটান যেতে লাগবে ১২০০ টাকা!

অনলাইন ডেস্ক
ভুটান যেতে লাগবে ১২০০ টাকা!

বেশ কিছুদিন ধরেই কানাঘুষা চলছিল ভুটান বাংলাদেশীদের জন্য ভ্রমণ কর আরোপ করতে যাচ্ছে। সংখ্যাটা কম নয় ৬৫ ডলার (টাকার অংকে ৫৫২৫)। তার মানে বাংলাদেশি টাকায় ৫৫২৫ টাকা দিতে হবে প্রতিদিন ভ্রমণ করতে হলে।

ভুটান প্রাচ্যের সুইজারল্যান্ড। হিমালয় বরফ ও বসন্ত সবমিলিয়ে প্রকৃতির অপূর্ব সমন্বয় ভুটানে। আকাশ নীলে নীল। এক ফোঁটা ধুলো কোথাও খুঁজে পাওয়া যাবে না। এবং ভ্রমণ খরচ খুব কম। বাংলাদেশ থেকে সড়কপথে যেতে লাগে মাত্র তিন ঘন্টা। আর প্লেনে দেড় ঘন্টা। বাংলাদেশের কাছে এই অপরূপ সৌন্দর্যের দেশটি হঠাত করেই বেশ ব্যয়বহুল হয়ে পড়েছিল। 

কানাঘুষা শোনা যাচ্ছিল বাংলাদেশিদের ভুটান ভ্রমন করতে হলে প্রতিদিন জনপ্রতি ৫৫২৫ টাকা দিতে হবে। পৃথিবীর উন্নত দেশগুলোর জনগণকেও জনপ্রতি একই সমপরিমাণ টাকা দিতে হয় ভুটান ভ্রমণের জন্য। ভুটান সরকার তার পার্লামেন্টে প্রস্তাব রেখেছিল অন্যান্য দেশগুলোকে ৬৫ ডলার সমপরিমাণ ভ্রমণ কর দিতে হবে ভুটানে প্রবেশ করতে হলে। তবে তা বাতিল হয়েছে।

সম্প্রতি সার্ক দেশগুলোর জন্য ভোটার নতুন নীতিমালা তৈরি করেছে। আর তা হল সার্ক দেশভক্ত নাগরিকদেরকে ভুটানের ঢুকতে হলে প্রতিদিন ভ্রমণ কর দিতে হবে ১২ ডলার। বাংলা টাকায় যা বারোশো টাকার সমপরিমাণ। যদি দুজন বাংলাদেশের নাগরিক ভুটান ভ্রমণ করেন তিনদিন। তাদের লাগবে ৭২০০ টাকা। আশা করা যায় বাংলাদেশের ভ্রমণপি'পাসুরা অনায়াসেই এইটুকু খরচ বহন করতে পারবেন ভুটান ভ্রমনে। চলতি বছর জুলাইয়ের  তারিখ থেকে এই ভ্রমণ কর অন্তর্ভুক্ত করতে যাচ্ছে ভুটানের কর্তৃপক্ষ।

নতুন আইনের ফলে পর্যটন শুল্কে ছাড় পাবেন না বাংলাদেশিরা। এ তালিকায় আছে দক্ষিণ এশিয়ার ভারত-মালদ্বীপও।

দেশটিতে বর্তমানে পর্যটকদের দৈনিক ২৫০ ডলার ফি দিতে হয়। এর মধ্যে ৬৫ ডলার সাসটে'ইনেবল ডেভেলপমেন্ট ফি এবং ৪০ ডলার ভিসা প্রসেসিং ফি। এতদিন ভারত-বাংলাদেশি পর্যটকদের এসব ফি দিতে হতো না। নতুন আইনে মাথাপিছু দিনপ্রতি ১২ ডলার দিতে হবে।

ভুটানের পর্যটন মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, পর্যটকদের উন্নত পরিষেবা দিতে এই নীতি পরিবর্তনের অন্যতম কারণ।

উল্লেখ্য, পাহাড়, নদী আর ঝরনার মিতা'লিতে সৃষ্ট প্রকৃতির এক অপরূপ নিদর্শন ভুটান। ফ্যামিলি ট্যুর, ফ্রেন্ডস ট্যুর, কাপল ট্যুর, মধুচন্দ্রিমা সবকিছুর জন্যই ভুটান অনে'কেরই প্রথম পছন্দ।

ভুটানে প্রকৃতি ছাড়াও দৃষ্টিন'ন্দন স্থাপনা, বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থানের পাশাপাশি আছে ঝুল'ন্ত ব্রিজও। এছাড়া জাতীয় জাদুঘর, ভুটানের চিড়িয়াখানায় জাতীয় পশু দেখে মন-প্রাণ জুড়িয়ে যাবে।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে